গুরু জেমস

মাহফুজ আনাম জেমস


বাংলাদেশ সহ উপমহাদেশের জীবন্ত কিংবদন্তি , জণপ্রিয় রক সঙ্গীত শিল্পী গুরু জেমস । ফারুক মাহফুজ আনাম (জন্মঃ ২ অক্টোবর ১৯৬৪) হলেন একজন বাংলাদেশী রক সঙ্গীত শিল্পী, যিনি জেমস নামেই পরিচিত। তিনি তার ভক্তদের কাছে ‘গুরু’, ‘নগর-বাউল’ নামেও পরিচিত।


গুরু জেমস বর্তমানে নগর বাউল ব্যান্ডের প্রধান গিটারিস্ট এবং ভোকালিষ্ট, যা পূর্বে ফিলিংস নামে পরিচিত ছিল। তিনি তার স্বতন্ত্র কন্ঠ এবং স্টাইলের জন্য বাংলাদেশ এবং ভারতের মানুষের কাছে ব্যপক জনপ্রিয়। তিনি বলিউডের কিছু চলচ্চিত্রে প্লেব্যাকও করেছেন।


যেভাবে হলেন আজকের নগরবাউল জেমস

গুরু জেমসের জন্ম নওগাঁয়, তবে তিনি বেড়ে ওঠেন চট্টগ্রামে। তার বাবা ছিলেন একজন সরকারি কর্মচারি, যিনি পরবর্তীতে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সঙ্গীত গুরু জেমসের পছন্দের হলেও তার পরিবার তা পছন্দ করত না। গানের জন্য বাবার সাথে অভিমান করে ঘর ছাড়েন তিনি কিশোর বয়সে। চট্টগ্রামের আজিজ বোর্ডিং নামক একটি বোর্ডিং-এ তিনি থাকতে শুরু করেন। সেখানে থেকেই তার সঙ্গীতের ক্যারিয়ার শুরু হয়। কিছু বন্ধুদের নিয়ে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ফিলিংস নামক একটি ব্যান্ড এবং ব্যান্ডের প্রধান গিটারিস্ট ও কন্ঠদাতা হিসেবে নিজের ক্যারিয়ার শুরু করেন। চট্টগ্রাম থেকে শুরু হওয়া ব্যান্ড দল ফিলিংস এর মাধ্যমে তিনি প্রথমে খ্যাতি অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি নগর বাউল নামে ব্যান্ড দল গঠন করেন। তিনি নগর বাউল এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। বাংলা ভাষায় তিনিই প্রথম সাইকিডেলিক রক শুরু করেন। গিটার বাজানোতেও তিনি দারুণ পটু। তিনি নগরবাউল ব্যান্ডের মূল ভোকাল ও গিটারিষ্ট হলেও তিনি মূলত তার সলো ক্যারিয়ারকেই বেশি গুরত্ব দেন। অনেক গীতিকার তার জন্য সঙ্গীত রচনা করেছেন। যাদের মধ্যে কবিশামসুর রহমান, প্রিন্স মাহমুদ, শিবলি উল্লেখযোগ্য। কর্মজীবনের প্রথম দিকে তিনি জিম মরিসন, মার্ক নফলার এবং এরিক ক্লাপটনের মত সঙ্গীত শিল্পীদের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছেন। ১৯৮৭ সালে ফিলিংস ব্যান্ডের সাথে তার প্রথম অ্যালবাম “স্টেশন রোড” মুক্তি পায়। ১৯৮৮ সালে মুক্তি পায় তার প্রথম একক অ্যালবাম অনন্যা। পরবর্তীতে তিনি ফিলিংস ব্যান্ডের নাম পরিবর্তন করে নতুন নাম দেন “নগর বাউল”।

মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার

সাল নাম বিভাগ ফলাফল
২০০১ পেপসি শ্রেষ্ঠ মডেল (পুরুষ) মনোনীত
২০১৪ দেশা আসছে শ্রেষ্ঠ কণ্ঠশিল্পী (পুরুষ) বিজয়ী